আজকের বাজার দর বাংলাদেশ

আজকের গমের দাম কত ২০২৪

গমের দাম 2024 বাংলাদেশ :-গম বাংলাদেশের সবচেয়ে প্রয়োজনীয় প্রধান শস্যগুলির মধ্যে একটি, যা লক্ষাধিক মানুষের প্রাথমিক খাদ্যের উৎস হিসেবে কাজ করে। দেশের খাদ্য নিরাপত্তা, মুদ্রাস্ফীতির হার এবং সামগ্রিক অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা নির্ধারণে গমের দাম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এই নিবন্ধটির লক্ষ্য 2024 সালের জন্য বাংলাদেশে গমের মূল্যকে প্রভাবিত করে এবং কৃষি খাত এবং ব্যাপকভাবে জনসংখ্যার উপর তাদের সম্ভাব্য প্রভাবগুলি বিশ্লেষণ করা।

গমের দাম বাংলাদেশ
গমের দাম বাংলাদেশ

গমের দাম 2024 বাংলাদেশ

তো চলুন বন্ধুরা জেনে নেয়া যাক পাইকারি ও খুচরা গমের দাম বর্তমান বাংলাদেশে কত টাকা প্রথমে দেখে নেয়া যাক পাইকারি গমের দাম কত তারপরে খুচরা গমের দাম কত টাকা চলছে।

পাইকারি

  • স্থানীয়: ৫০-৫৫ টাকা/কেজি
  • আমদানিকৃত: ৫৮-৬২ টাকা/কেজি

খুচরা

  • স্থানীয়: ৫৫-৬০ টাকা/কেজি
  • আমদানিকৃত: ৬২-৬৭ টাকা/কেজি

চাহিদা ও সরবরাহের গতিশীলতা:

জনসংখ্যা বৃদ্ধি, নগরায়ন এবং খাদ্যতালিকাগত পছন্দ পরিবর্তনের কারণে বাংলাদেশে গমের চাহিদা ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। অভ্যন্তরীণ গম উৎপাদন বাড়ানোর প্রচেষ্টা সত্ত্বেও, দেশ এখনও তার প্রয়োজনীয়তা মেটাতে আমদানির উপর ব্যাপকভাবে নির্ভর করে। তাই, বিশ্বব্যাপী গমের দামের ওঠানামা, আমদানি নীতির পরিবর্তন এবং সরবরাহে বাধা স্থানীয় মূল্যকে উল্লেখযোগ্যভাবে প্রভাবিত করতে পারে।

গ্লোবাল গমের বাজার:

বৈশ্বিক গমের দাম বিভিন্ন কারণের দ্বারা প্রভাবিত হয় যেমন আবহাওয়া পরিস্থিতি, প্রধান গম উৎপাদনকারী দেশগুলিতে উৎপাদনের মাত্রা, রপ্তানি নীতি এবং ভূ-রাজনৈতিক ঘটনা। 2023 সালে, বাংলাদেশে গমের প্রাপ্যতা এবং মূল্য নির্ধারণকে কীভাবে প্রভাবিত করতে পারে তা বোঝার জন্য এই পরিবর্তনগুলি বিবেচনা করা অপরিহার্য।

আজকের গমের দাম
আজকের গমের দাম

জলবায়ু পরিবর্তন এবং ফসল উৎপাদন:

জলবায়ু পরিবর্তন গম উৎপাদন সহ বিশ্বব্যাপী কৃষি উৎপাদনশীলতার জন্য একটি উল্লেখযোগ্য উদ্বেগ হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। অপ্রত্যাশিত আবহাওয়ার ধরণ, প্রচণ্ড তাপ এবং অনিয়মিত বৃষ্টিপাতের ফলে ফলন কমে যেতে পারে এবং নিম্নমানের ফসল হতে পারে। বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাবের সম্মুখীন হচ্ছে, যা গমের উৎপাদনকে প্রভাবিত করতে পারে এবং পরবর্তীতে এর দামকে প্রভাবিত করতে পারে।

সরকারি নীতি ও সহায়তা:

WhatsApp Group Join Now
Telegram Group Join Now
Instagram Group Join Now

বাংলাদেশ সরকার গমের বাজার নিয়ন্ত্রণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আমদানি শুল্ক, ভর্তুকি এবং কৃষি বিনিয়োগ সম্পর্কিত নীতিগুলি গমের দামের উপর সরাসরি প্রভাব ফেলে। 2023 সালে এই নীতিগুলিতে যে কোনও পরিবর্তন বা সমন্বয় গমের স্থানীয় মূল্যকে প্রভাবিত করতে পারে।

পরিবহন এবং স্টোরেজ অবকাঠামো:

স্থিতিশীল গমের দাম বজায় রাখার জন্য দক্ষ পরিবহন এবং পর্যাপ্ত স্টোরেজ অবকাঠামো অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। অপর্যাপ্ত স্টোরেজ সুবিধা এবং পরিবহন বাধার কারণে ফসল কাটার পরে লোকসান হতে পারে এবং গমের দাম বাড়াতে পারে। সাপ্লাই চেইনের এই দিকগুলোর উন্নতিতে বিনিয়োগ মূল্য স্থিতিশীল করতে এবং অপচয় কমাতে সাহায্য করতে পারে।

মুদ্রা বিনিময় হার:

মুদ্রা বিনিময় হার বাংলাদেশে গমের দামকেও প্রভাবিত করে। প্রধান মুদ্রার বিপরীতে স্থানীয় মুদ্রার অবমূল্যায়ন হলে গম আমদানির খরচ বাড়তে পারে, যার ফলে ভোক্তাদের জন্য দাম বেশি হতে পারে। 2023 সালে গমের দামের উপর সম্ভাব্য প্রভাব বোঝার জন্য বিনিময় হারের ওঠানামা পর্যবেক্ষণ করা অত্যাবশ্যক।

ভোক্তা এবং খাদ্য নিরাপত্তার উপর প্রভাব:

গমের দামের যে কোনো উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন খাদ্য সামগ্রী যেমন রুটি, বিস্কুট এবং অন্যান্য গম-ভিত্তিক পণ্যের দামের উপর সরাসরি প্রভাব ফেলতে পারে। উচ্চ মূল্য পরিবারের বাজেট, বিশেষ করে নিম্ন আয়ের পরিবারের জন্য চাপ দিতে পারে। উপরন্তু, গমের দামের ওঠানামা খাদ্য নিরাপত্তা এবং দুর্বল জনগোষ্ঠীর পুষ্টির সুস্থতাকে প্রভাবিত করতে পারে।

উপসংহার:

2024 সালের জন্য বাংলাদেশে গমের দামের প্রবণতা বিশ্লেষণ করার জন্য বাজারকে প্রভাবিত করে এমন বিভিন্ন কারণগুলির একটি বিস্তৃত বোঝার প্রয়োজন। জলবায়ু পরিবর্তন, আন্তর্জাতিক বাজারের গতিশীলতা এবং সরকারি নীতির মতো বৈশ্বিক কারণগুলি একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করলেও, স্থানীয় বিবেচনা যেমন পরিবহন অবকাঠামো এবং মুদ্রা বিনিময় হার সমানভাবে গুরুত্বপূর্ণ। অভ্যন্তরীণ গমের উৎপাদন বাড়ানো এবং সরবরাহ চেইন উন্নত করার জন্য সক্রিয় পদক্ষেপের সাথে এই কারণগুলির ক্রমাগত পর্যবেক্ষণ, গমের দামের ওঠানামার দ্বারা সৃষ্ট সম্ভাব্য চ্যালেঞ্জগুলিকে প্রশমিত করতে সহায়তা করতে পারে। খাদ্য নিরাপত্তা, ক্রয়ক্ষমতা এবং গমের দামের স্থিতিশীলতা নিশ্চিত করা বাংলাদেশের নীতিনির্ধারক, কৃষক এবং ভোক্তাদের জন্য অগ্রাধিকার হওয়া উচিত।

প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন (FAQs) – 2024 সালের জন্য বাংলাদেশে গমের দাম

প্রশ্ন 1: বাংলাদেশে গমের দামকে কী কী কারণে প্রভাবিত করে?

A1: বাংলাদেশে গমের দাম বিশ্বব্যাপী বাজারের গতিশীলতা, চাহিদা ও সরবরাহের গতিশীলতা, জলবায়ু পরিবর্তন, সরকারী নীতি ও সহায়তা, পরিবহন ও স্টোরেজ অবকাঠামো এবং মুদ্রা বিনিময় হার সহ বিভিন্ন কারণের দ্বারা প্রভাবিত হয়।

প্রশ্ন 2: বিশ্ববাজারের গতিশীলতা কীভাবে বাংলাদেশে গমের দামকে প্রভাবিত করে?

A2: আবহাওয়া পরিস্থিতি, প্রধান গম উৎপাদনকারী দেশগুলিতে উৎপাদনের মাত্রা, রপ্তানি নীতি এবং ভূ-রাজনৈতিক ঘটনাগুলির মতো বৈশ্বিক কারণগুলি বিশ্বব্যাপী গমের দামকে প্রভাবিত করতে পারে। এই কারণগুলির ওঠানামা বাংলাদেশে গমের প্রাপ্যতা এবং মূল্যের উপর সরাসরি প্রভাব ফেলতে পারে, কারণ দেশটি আমদানির উপর ব্যাপকভাবে নির্ভর করে।

প্রশ্ন 3: জলবায়ু পরিবর্তন কীভাবে বাংলাদেশে গমের উৎপাদন এবং দামকে প্রভাবিত করে?

A3: জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে অনাকাঙ্ক্ষিত আবহাওয়ার ধরণ, চরম তাপ, এবং অনিয়মিত বৃষ্টিপাত হতে পারে, যা গমের ফলন এবং নিম্নমানের ফসলের কারণ হতে পারে। জলবায়ু পরিবর্তনের এই বিরূপ প্রভাবগুলি গমের উৎপাদনকে প্রভাবিত করতে পারে এবং পরবর্তীতে বাংলাদেশে এর দামকে প্রভাবিত করতে পারে।

প্রশ্ন 4: গমের মূল্য নির্ধারণে সরকারী নীতি এবং সহায়তা কী ভূমিকা পালন করে?

A4: বাংলাদেশ সরকার গমের বাজার নিয়ন্ত্রণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আমদানি শুল্ক, ভর্তুকি এবং কৃষি বিনিয়োগ সম্পর্কিত নীতিগুলি সরাসরি গমের দামকে প্রভাবিত করতে পারে। 2023 সালে এই নীতিগুলিতে যে কোনও পরিবর্তন বা সমন্বয় গমের স্থানীয় মূল্যের উপর প্রভাব ফেলতে পারে।

প্রশ্ন 5: পরিবহন এবং স্টোরেজ অবকাঠামো কীভাবে গমের দামকে প্রভাবিত করে?

A5: স্থিতিশীল গমের দাম বজায় রাখার জন্য দক্ষ পরিবহন এবং পর্যাপ্ত স্টোরেজ অবকাঠামো অপরিহার্য। অপর্যাপ্ত স্টোরেজ সুবিধা এবং পরিবহন বাধার কারণে ফসল কাটার পরে লোকসান হতে পারে এবং গমের দাম বাড়াতে পারে। সাপ্লাই চেইনের এই দিকগুলোর উন্নতিতে বিনিয়োগ মূল্য স্থিতিশীল করতে এবং অপচয় কমাতে সাহায্য করতে পারে।

প্রশ্ন 6: মুদ্রা বিনিময় হার কীভাবে বাংলাদেশে গমের দামকে প্রভাবিত করে?

A6: মুদ্রা বিনিময় হার গম আমদানির খরচ প্রভাবিত করতে পারে। প্রধান মুদ্রার বিপরীতে স্থানীয় মুদ্রার অবমূল্যায়ন হলে গম আমদানির খরচ বাড়তে পারে, যার ফলে বাংলাদেশের ভোক্তাদের জন্য দাম বেশি হতে পারে। 2023 সালে গমের দামের উপর তাদের সম্ভাব্য প্রভাব বোঝার জন্য বিনিময় হারের ওঠানামা পর্যবেক্ষণ করা গুরুত্বপূর্ণ।

প্রশ্ন 7: ভোক্তা এবং খাদ্য নিরাপত্তার উপর গমের দামের ওঠানামার সম্ভাব্য প্রভাবগুলি কী কী?

A7: গমের দামের ওঠানামা খাদ্য সামগ্রী যেমন রুটি, বিস্কুট এবং অন্যান্য গম-ভিত্তিক পণ্যের দামের উপর সরাসরি প্রভাব ফেলতে পারে। উচ্চ মূল্য পরিবারের বাজেট, বিশেষ করে নিম্ন আয়ের পরিবারের জন্য চাপ দিতে পারে। গমের দামের ওঠানামা খাদ্য নিরাপত্তা এবং দুর্বল জনগোষ্ঠীর পুষ্টির সুস্থতাকেও প্রভাবিত করতে পারে।

প্রশ্ন 8: গমের দাম ওঠানামা করার ফলে সৃষ্ট চ্যালেঞ্জগুলি কমাতে কী করা যেতে পারে?

A8: গমের দামের ওঠানামার দ্বারা সৃষ্ট চ্যালেঞ্জ প্রশমনের জন্য সক্রিয় পদক্ষেপের প্রয়োজন। এর মধ্যে অভ্যন্তরীণ গম উৎপাদনে বিনিয়োগ, সাপ্লাই চেইন অবকাঠামোর উন্নতি, কার্যকর সরকারি নীতি বাস্তবায়ন এবং টেকসই কৃষি পদ্ধতির প্রচার অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। জলবায়ু পরিবর্তন এবং মুদ্রা বিনিময় হারের প্রভাবগুলি পর্যবেক্ষণ এবং মোকাবেলা করাও গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ।

প্রশ্ন 9: বাংলাদেশে গমের দাম সম্পর্কে নীতিনির্ধারক, কৃষক এবং ভোক্তাদের জন্য কী ফোকাস করা উচিত?

A9: খাদ্য নিরাপত্তা, ক্রয়ক্ষমতা এবং গমের দামের স্থিতিশীলতা নিশ্চিত করা বাংলাদেশের নীতিনির্ধারক, কৃষক এবং ভোক্তাদের জন্য একটি অগ্রাধিকার থাকা উচিত। এর মধ্যে গমের মূল্যকে প্রভাবিত করার অন্তর্নিহিত কারণগুলিকে মোকাবেলা করা, টেকসই কৃষি পদ্ধতির প্রচার করা, দেশীয় উৎপাদন বৃদ্ধি করা এবং একটি স্থিতিস্থাপক এবং নিরাপদ গমের বাজার তৈরি করার জন্য সামগ্রিক সরবরাহ চেইন উন্নত করা জড়িত।

Subha

আমি শুভ, দীর্ঘদিন যাবত ব্লগিং এর সঙ্গে যুক্ত। আমি এই সাইটটির মাধ্যমে আপনাদের প্রতিদিন বিভিন্ন দেশের আজকের স্বর্ণের মূল্য ও বিভিন্ন দেশের টাকার এক্সচেঞ্জ রেট আজ বাংলাদেশি টাকায় কত ও বাংলাদেশের বিভিন্ন নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের আজকের বাজারদরের দাম কত তার আপডেট প্রতিদিন আপনাদের সাথে শেয়ার করে থাকি।

2 Comments

  1. ভাই আমার কাছে তো ৫০ মন গম আছে আমি কোথায় বিক্রি করব ৫০ থেকে ৫৫ টাকা কেজি দরে। আপনার যদি ক্রেতা সম্পর্কে কোন ধারণা থাকে তাহলে আমাকে একটু জানাবেন দয়া করে।

    1. ১) সরকারি খোলা বাজারে খাদ্যশস্য বিক্রয় (ওএমএস) ব্যবস্থা:

      খাদ্য মন্ত্রণালয় নিয়ন্ত্রিত এই ব্যবস্থার মাধ্যমে সরকার নির্ধারিত পরিমাণে গম ভর্তুকি দিয়ে ডিলারদের বিক্রি করে।
      ডিলাররা নির্ধারিত দোকানে জনসাধারণকে সরকার নির্ধারিত দামে গম বিক্রি করে।
      কার্যক্রম তদারকি করার জন্য মন্ত্রণালয় কর্মকর্তা ও তদারকি কমিটি নিয়োগ করে।
      ওএমএস নীতিমালা, ২০২১ অনুসারে বিক্রয় প্রক্রিয়া পরিচালিত হয়।
      ২) বেসরকারি বাজার:

      আন্তর্জাতিক বাজার থেকে আমদানি করা গম বেসরকারি খাতে বিক্রি হয়।
      মিলার, ট্রেডিং কোম্পানি ও খুচরা বিক্রেতা এই বাজারে অংশগ্রহণ করে।
      বাজার দাম আন্তর্জাতিক বাজার মূল্য ও স্থানীয় চাহিদা-জোগানের উপর নির্ভর করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button