ব্রুনাই ভিসার দাম কত || ব্রুনাই ভিসার দাম কত ২০২৪

শুভম
4 Min Read
ব্রুনাই ভিসার দাম

বাংলাদেশী নাগরিকদের জন্য ব্রুনাই ট্যুরিস্ট ভিসা
ব্রুনাই ভ্রমণের সময় বাংলাদেশি নাগরিকদের ভিসা থাকতে হয়। বাংলাদেশী নাগরিকদের জন্য ব্রুনাই ট্যুরিস্ট ভিসা প্রয়োজন। থাকার সময়কাল সাধারণত 30 দিনের সাথে সংক্ষিপ্ত হয় এবং ভিসার মেয়াদ 90 দিনের মধ্যে শেষ হয়। ব্রুনাই ট্যুরিস্ট ভিসার জন্য আবেদন করার সময় আবেদনকারীকে উপস্থিত থাকতে হবে। ব্রুনাই ট্যুরিস্ট ভিসা আবেদনের জন্য মোট 5 টি নথির প্রয়োজন।

ব্রুনাই ভিসার দাম
ব্রুনাই ভিসার দাম

ব্রুনাই ভিসার দাম

ভিসা ফি: টাকা 1,400.00 (একক প্রবেশ) টাকা 2,000 (একাধিক)। নগদে পেমেন্ট এবং ফেরতযোগ্য নয়।

ব্রুনাই ভিসার আবেদন

বাংলাদেশ থেকে ব্রুনাই ট্যুরিস্ট ভিসার জন্য কিভাবে আবেদন করবেন
বাংলাদেশি নাগরিকদের ব্রুনাই ভ্রমণের জন্য ট্যুরিস্ট ভিসা পেতে হবে। ব্রুনাই ট্যুরিস্ট ভিসা প্রক্রিয়ার জন্য আপনাকে মোট ৮টি ধাপ অনুসরণ করতে হবে।

  • ধাপ 1: পাসপোর্ট এবং অন্য যেকোনো সহায়ক নথি সহ ব্রুনাই ট্যুরিস্ট ভিসার জন্য প্রয়োজনীয় সমস্ত নথি সংগ্রহ করুন।
  • ধাপ 2: বাংলাদেশী পাসপোর্ট ব্রুনাইতে আপনার আগমনের তারিখ থেকে কমপক্ষে ছয় মাসের জন্য বৈধ কিনা তা পরীক্ষা করুন। নতুন বাংলাদেশী পাসপোর্টের জন্য আবেদন না করলে।
  • ধাপ 3: ব্রুনাইয়ের জন্য আবেদনপত্র পূরণ করুন।
  • ধাপ 4: পূরণ করার পরে, আপনার পাসপোর্টের সাথে প্রয়োজনীয় নথি সরবরাহ করুন এবং অর্থ প্রদান করুন এবং ব্রুনাইয়ের দূতাবাসে ভিসার আবেদন জমা দিন
  • ধাপ 5: একবার ব্রুনাইয়ের ভিসার আবেদন অনুমোদিত হলে, আপনি আপনার পাসপোর্টে একটি ভিসা স্টিকার পাবেন এবং ই-মেইলের মাধ্যমে তা জানানো হবে।
  • ধাপ 6: ব্রুনাই দূতাবাস থেকে আপনার পাসপোর্ট সংগ্রহ করুন
  • ধাপ 7: ব্রুনাই পৌঁছে, কাউন্টারে ইমিগ্রেশন অফিসারের কাছে বাংলাদেশের পাসপোর্ট উপস্থাপন করুন।
  • ধাপ 8: আপনি আপনার পাসপোর্টে ব্রুনাই ভিসা স্ট্যাম্প পাবেন, যা আপনাকে আপনার স্ট্যাম্পিংয়ের সময়কালের জন্য ব্রুনাইয়ে থাকতে দেয়।
whatapp channel

বাংলাদেশী নাগরিকদের জন্য ব্রুনাই ট্যুরিস্ট ভিসার প্রয়োজনীয়তা।

বাংলাদেশ থেকে ব্রুনাই ট্যুরিস্ট ভিসার জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্রের মধ্যে রয়েছে পাসপোর্ট, একটি সম্পূর্ণ ভিসা আবেদনপত্র এবং অন্যান্য সহায়ক নথি। মোট 5 টি নথি প্রয়োজন।

১.ভিসা আবেদনপত্র

ব্রুনাইয়ের জন্য পূরণকৃত আবেদনপত্র

২.পাসপোর্ট

ভ্রমণের তারিখে কমপক্ষে 6 মাস বৈধতা সহ দেশের আসল পাসপোর্ট বা ভ্রমণ নথি এবং কমপক্ষে 2টি ভিসা পৃষ্ঠা যেকোন চিহ্ন ছাড়াই পরিষ্কার।

৩.ভ্রমণ বুকিং

গন্তব্যের জন্য একটি রাউন্ড-ট্রিপ ফ্লাইট সংরক্ষণ(গুলি)৷ একটি অনওয়ার্ড টিকিট হল একটি বাস্তব ট্রাভেল এজেন্সি দ্বারা তৈরি একটি ফ্লাইট রিজার্ভেশন যা ভিসা আবেদনের জন্য সহায়ক হতে পারে বা আপনি যদি ফিরতি ফ্লাইট না কিনে কোনো দেশে প্রবেশ করতে চান। ভিসার উদ্দেশ্যে যাচাইযোগ্য ওয়ান ওয়ে, রাউন্ড ট্রিপ এবং মাল্টি-সিটি ফ্লাইট বুকিং পান।

৪.ব্যাংক দলিল

দেশ থেকে আবেদনকারীর সাম্প্রতিক মাসিক ব্যাঙ্ক স্টেটমেন্ট। বিবৃতিতে অবশ্যই অ্যাকাউন্ট ধারক হিসাবে আবেদনকারীর নাম, অ্যাকাউন্টের ব্যালেন্স এবং স্টেটমেন্টের তারিখ স্পষ্টভাবে দেখাতে হবে। যদি বিবৃতিগুলি অনলাইনে মুদ্রিত হয় তবে তা ব্যাংক কর্মকর্তাদের দ্বারা প্রমাণীকৃত (স্ট্যাম্পযুক্ত) হতে হবে।

৫.কাভার লেটার

আবেদনকারীর বিবরণ, ভ্রমণ এবং আপনার সাথে ভ্রমণকারী অন্যান্য সদস্যদের বিবরণ উল্লেখ করে কভারিং লেটার।

বাংলাদেশি নাগরিকদের কি ব্রুনাই যেতে ভিসার প্রয়োজন?

হ্যাঁ, বাংলাদেশী নাগরিকদের জন্য ভিসা প্রয়োজন। আপনি ব্রুনাই ভিসার জন্য ভিসার বিশদ বিবরণ, প্রয়োজনীয় নথিপত্র, অফিসিয়াল ওয়েবসাইট এবং অন্যান্য বিবরণ পেতে পারেন তবে আপনার যদি এখনও এমন প্রশ্ন থাকে যার উত্তর না থাকে তবে আপনি সম্প্রদায়ের সাথে আলোচনা করতে পারেন।

ব্রুনাই ট্যুরিস্ট ভিসা কতদিন বৈধ?

ভিসার মেয়াদ 90 দিনের জন্য।

ট্যুরিস্ট ভিসায় আমি কতক্ষণ ব্রুনাইতে থাকতে পারি?

থাকার সময়কাল সাধারণত 30 দিনের সাথে সংক্ষিপ্ত হয়

বাংলাদেশের নাগরিকের জন্য কি ব্রুনাই ভিসা প্রয়োজন?

ব্রুনাই ভ্রমণের জন্য বাংলাদেশী নাগরিকদের ভিসা থাকতে হবে।

ব্রুনাই ভিসার দাম কত?

ভিসা ফি: টাকা 1,400.00 (একক প্রবেশ) টাকা 2,000 (একাধিক)। 
নগদে পেমেন্ট এবং ফেরতযোগ্য নয়।

Share This Article
Follow:
আমি শুভম, দীর্ঘদিন যাবত ব্লগিং এর সঙ্গে যুক্ত। আমার এই ওয়েবসাইটির মাধ্যমে আপনার নিত্যদিনের তাজা খবর, জিনিসপত্রের দাম, টাকার রেট সম্মন্ধে সবার আগে জানতে পারবেন।
Leave a comment